গত কয়েকদিন ধরে দেশে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জ কে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে। একাধিক গ্রাহক ওই ই-অরেঞ্জের বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ তুলেছেন। এখনো অসংখ্য গ্রাহক তাদের অডার করা পন্যটি পাচ্ছে না। এদিকে, এই ই-অরেঞ্জকে নিয়ে যখন ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে ঠিক এই সময় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের কথিত পৃষ্ঠপোষক বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা দেশ থেকে পালিয়ে যাচ্ছিলেন বলে সংবাদ প্রকাশ পেল। তিনি ভারতে পালিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে তিনি ভারতে অ’’বৈধ ভাবে প্রবেশ করতে যাওয়ার সময় আটক হন। এবার তাকে নিয়ে কথা বলেছেন ডিএমপি কমিশনার।


ভারতে আটক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের কথিত পৃষ্ঠপোষক বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানাকে দেশে ফিরেয়ে আনা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।
আজ রবিবার দুপুরে সাড়ে ১২টার দিকে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান তিনি।
এর আগে সীমান্ত টপকে ভারতে প্রবেশের সময় সোহেল রানাকে আটক করে বিএসএফ। শনিবার বিএসএফের পক্ষ থেকে এক প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়, ’সোহেল রানা স্বীকার করেছেন অ’’বৈধভাবে ভারত সী’’মা’’ন্ত পার হয়ে নেপালের কাঠমাণ্ড যেতে চেয়েছিলেন। পরে সেখান থেকে ইউরোপে পাড়ি দেওয়ার উদ্দেশ্য ছিল তার।’ সোহেল রানাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শুক্রবার রাতে স্থানীয় মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশের হাতে তুলে দেয় বিএসএফ। সোহেলের কাছ থেকে বাজেয়াপ্ত সব জিনিস মেখলিগঞ্জ পুলিশের হাতে হস্তান্তর করা হয়। এরপর শনিবার তাকে কোচবিহার জেলা আদালতে তোলা হলে, তার ৩ দিনের পুলিশ রি’’মা’’ন্ড মঞ্জুর করেন আদালত। সূত্র:বিডি প্রতিদিন


উল্লেখ্য, এই পুলিশ কর্মকর্তা ও ই-অরেঞ্জের পৃষ্ঠপোষকের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ উঠে আসে। এমনকি তিনি বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ উঠে এসেছে। তিনি ই-অরেঞ্জের পৃষ্ঠপোষক বলে গণমাধ্যমে প্রায় সময় সংবাদ উঠে এসেছে। আর তার বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ ওঠার পর থেকে তিনি পালানোর চেষ্টা করতে থাকেন। অবশেষে তিনি ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় আটক হন। তাকে দেশে আনা হবে বলে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।