বাংলাদেশের বিনোদন জগতে একটা সময় অসংখ্য অভিনেতা অভিনেত্রী ছিলেন। ওই সকল অভিনেতা অভিনেত্রী তাদের দক্ষ কাজের মাধ্যমে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তবে একটা সময় ধীরে ধীরে অনেক অভিনেতা অভিনেত্রী অভিনয় জগত থেকে নিজেদের গুটি নেয়। আর তারা অভিনয় থেকে সরে যাওয়ার পর বেশিভাগ সময় প্রবাসে চলে যান। দেশের অসংখ্য অভিনেতা অভিনেত্রী বর্তমানে প্রবাসে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন। জানা গেছে আমেরিকাতে একাধিক অভিনেতা অভিনেত্রী রয়েছে। আর এবার তৌকির-বিপাশার পথ ধরে প্রবাসী হচ্ছেন শাহেদ-নাতাশা দম্পতি।

জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেতা শাহেদ শরীফ খান ও নাতাশা হায়াত দম্পতি সম্প্রতি সপরিবারে আমেরিকায় অবকাশ যাপন করে দেশে ফিরেছেন। এ যাত্রায় তারা প্রায় দুই মাস আমেরিকায় অবস্থান করেন। সেখানে গিয়ে তারা তৌকীর-বিপাশা দম্পতির বাসায় অবস্থান নেন। তৌকীর আহমেদ ও বিপাশা হায়াত দম্পতি আগে থেকেই আমেরিকায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেছেন। জানা গেছে, দেশটিতে ঘুরতে যাওয়ার কথা বললেও শাহেদ সপরিবারে আমেরিকা স্থায়ী হওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারই অংশ হিসাবে বর্তমান চলমান এ কঠিন সময়েও তারা আমেরিকা সফর করে এলেন। যদিও স্থায়ী হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেননি শাহেদ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ’অনেক তারকাই এখন আমেরিকামুখী। গত কয়েক বছরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক তারকা আমেরিকায় স্থায়ী হয়েছেন। কিন্তু এ বিষয়টি নিয়ে এখনই কিছু ভাবছি না। কারণ সেখানে গেলে আমার অভিনয় ক্যারিয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দর্শক এখনো আমার অভিনয় আগ্রহ নিয়েই দেখেন। তাই তাদের এ ভালোবাসার প্রতিদান তো দিতে হবে। আমি দেশেই থাকব।’ তাহলে এ দুঃসময়েও কেন আমেরিকা ভ্রমণ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ’দেশে প্রাদুর্ভাব শুরু হলে আমার পরিবারের সদস্যরা ঘরবন্দি হয়ে পড়ে। আমি শুধু শুটিংয়ের প্রয়োজনে বাইরে বের হয়েছি। ওরা এক ধরনের বি’ষা’দ’গ্র’স্ত হয়ে পড়েছিল। তা ছাড়া দেশের বাইরে যাওয়া হয় না অনেক দিন। ঈদের আগের সময়টাতে বাসায় থাকায় শুটিং ব্যস্ততা কম ছিল আমার। স্ত্রী, সন্তানরাও দেশের বাইরে যাওয়ার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে। তাই সবাই ঘুরে এলাম।’ তিনি আরও বলেন, ’আমেরিকায় আমি বেশ কয়েকটি প্রদেশ ঘুরেছি। আমাদের শোবিজের অনেকের সঙ্গেই দেখা করেছি। ভালোভাবেই সময়গুলো কেটেছে।’ এদিকে ঈদের পর দেশে ফিরেই শুটিংয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন শাহেদ। কয়েকদিন আগে একটি টিভি বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেছেন। শিগ্গির নাটকের শুটিংয়ে অংশ নেবেন এ অভিনেতা। সূত্র:যুগান্তর

উল্লেখ্য, আমেরিকায় দীর্ঘদিন ধরে রয়েছেন বাংলাদেশের এই তারকা অভিনেতা অভিনেত্রী দম্পতি। এছাড়াও দেশটিতে অসংখ্য বাংলাদেশি তারাকা অভিনেতা অভিনেত্রীরা স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। তবে চলমাণ খারাপ পরিস্থিতির মধ্যেও তারা আমেরিকায় যাওয়ায় নানা রকম আলোচনা শুরু হয়। অনেকে মনে করতে থাকেন তারা হয়তো আমেরিকায় স্থায়ী হবেন। কিন্তু এবার অভিনেতা শাহেদ বলেছেন এখনি তিনি সেখানে স্থায়ি হতে চান না। দেশে এখনো তার অনেক কাজ রয়েছে বলে জানান। আর তিনি আমেরিকা থেকে এসেই কাজে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।