কিছু খারাপ চরিত্রের মানুষের কারণে গৃহকর্মী ভালো ভাবে বাসা বাসায় কাজ করতে পারে না। এমনকি ওই সকল খারাপ চরিত্রের মানুষের কারণে গৃহকর্মীর জীবনে সব থেকে বড় বিপদ নেমে আসে। এক এক ব্যক্তি বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে এসেছে যে তিনি গৃহকর্মীর সঙ্গে দিনের পর দিন খারাপ কাজ করেন। আর এই সকল ঘটনা ওই অভিযুক্ত ব্যক্তির স্ত্রীও জানতো বলে সংবাদে উঠে এলো। তবে এরপরও ওই ব্যক্তি দিনের পর দিন এমন খারাপ কাজ করে আসতো। অবশেষে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। একই সঙ্গে তার স্ত্রীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। এবার সংবাদ প্রকাশ পেল যে ভুক্তভোগী গৃহকর্মীর সঙ্গে কি ঘটেছে।

দিনের পর দিন স্বামীর লা’’’ল’সা’’’র শি’কা’র হচ্ছেন গৃহকর্মী, সবকিছু জেনেও চুপ ছিলেন স্ত্রী। তারই ধারাবাহিকতায় সেই গৃহকর্মী তরুণী অ’’ন্তঃ’স’’ত্ত্বা হয়ে পড়েছেন। সম্প্রতি চট্টগ্রাম নগরের পাহাড়তলী থানা এলাকায় ওই গৃহকর্মীর (২০) সঙ্গে খারাপ কাজের অভিযোগে মো. সিরাজ (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়া খারাপ কাজের সহযোগিতার অভিযোগে তার স্ত্রী সাহেদা আক্তার পিংকিকে (৩২) গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার দুজনের গ্রামের বাড়ি সন্দ্বীপ উপজেলায়। তারা পাহাড়তলী মাইট্টাইল্লা পাড়া নাছির ভবনের চতুর্থ তলায় বসবাস করেন। পাহাড়তলী থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ভুক্তভোগী গৃহকর্মী থানায় মামলা করেন। পরে অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) পুলিশ পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা গেছে, ভুক্তভোগী গৃহকর্মী ১৫ বছর ধরে অভিযুক্তদের বাসায় কাজ করে আসছিলেন। সাত-আট বছর ধরে ওই গৃহকর্মীর সঙ্গে খারাপ কাজ করে আসছিল। ভুক্তভোগী গৃহকর্মী বিষয়টি সিরাজের স্ত্রীকে জানালে তিনিও কোনো সহযোগিতা করেননি। একপর্যায়ে ওই গৃহকর্মী বর্তমানে আট মাসের অ’’ন্তঃ’’স’’ত্ত্বা। পরে বাধ্য হয়ে ওই গৃহকর্মী থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

পাহাড়তলী থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ’ভুক্তভোগী তরুণীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারদের সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।’


উল্লেখ্য, কিছু খারাপ চরিত্রের মানুষের কারণে অসহায় তরুণীরাও বর্তমানে নিরাপদ থাকতে পাড়ছে না। ভুক্তভোগী গৃহকর্মী দীর্ঘদিন ওই বাসায় থাকার কারণে খারাপ চরিত্রের ব্যক্তি প্রায় সময় নানা রকম কান্ড ঘটনাতো বলে অভিযোগ উঠে আসে। তবে অবশেষে গৃহকর্মী যখন বড় রকমের বিপদে পড়েছে তখনি তিনি থানায় গিয়ে মামাল করেছে। ইতিমধ্যে অভিযুক্ত ব্যক্তি ও তার স্ত্রীকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আর ওই গৃহকর্মীকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।