দেশের আনাচে কানাচ থেকে প্রায় সময় সংবাদ উঠে আসে কিছু অসাধু ব্যক্তি নানারকম প্রতারণা করে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নে। এমনকি কিছু পুরুষ বিয়ের মাধ্যমেও প্রতারণার জাল বোনে। এবার এক ডাক্তারের বিরুদ্ধে তেমনি একটি অভিযোগ উঠে এসেছে যে তিনি বিয়ে করে্ব নারীদের বিদেশে পাঠাতেন। এরপর সেখানে নারীদের আটকে রেখে বিপুল পরিমাণ অর্থ দাবি করতেন। অর্থ না দিলেই সেই নারীর জীবনে বড় রকমের বিপদ নেমে আসে। তবে অবশেষে সেই ডাক্তার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বর্তমানে একাধিক অভিযোগ উঠে এসেছে। এবার এই বিষয়ে বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশ্যে এলো।

রাজধানীতে মা’ন’ব’পা’চা’র চক্রের দুজনকে গ্রেপ্তারের দাবি করেছে র‍্যাব। বিদেশে পা’চা’র করে মোটা অংকের মুক্তিপণ দাবি করতো তারা। টাকা না পেলে করা হতো নি’’র্যা’’ত’’ন। এ পর্যন্ত অন্তত পাঁচ নারীকে বিয়ের পর পা’’চা’’র করেছে কথিত ডাক্তার লিটন। তাদের হাত থেকে কৌশলে পালিয়ে এসে পা’চা’রে’র নির্মম কাহিনী র‍্যাবের কাছে বর্ণনা করেছে দুই নারী। শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কারওয়ান বাজারে সংবাদ সম্মেলনে বাহিনীর মুখপাত্র খন্দকার আল মঈন একথা জানান।

র‍্যাব কর্মকর্তারা জানান, আটক লিটন বিয়ে করে নারীদের পা’চা’র করতো। এ পর্যন্ত অন্তত পাঁচ নারীকে বিয়ের পর পা’চা’রে’র তথ্য পেয়েছে র‍্যাব। এছাড়া নার্স, মেডিকেল এসিসট্যান্টসহ নানা কাজের লোভ দেখিয়ে নারীদের পা’চা’র করতো এই দুইজন। এজন্য বিভিন্ন দপ্তরের ভুয়া কাগজপত্র, সিলমোহর তৈরি করতো তারা নিজেরাই।

কথিত স্ত্রীদের মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পা’চা’র করতেন। অভিযোগ আছে দে’’হ ব্যবসা করানোর। যাতে ইরাকেই অন্তত ৫ নারীকে পাচার করেছেন তিনি।

অবশেষে রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুরে অভিযান চালিয়ে লিটনসহ চক্রের দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। তারা জানায়, এরইমধ্যে ৩০-৩৫ জন নারীকে পাচার করেছে চক্রটি।

এই চক্রের হাতে পা’চা’র হওয়া অনেক নারী এখনও ইরাকে তাদের পরিচিত দা’লা’লদের হাতে জি’ম্মি আছে বলে জানান র‍্যাব কর্মকর্তারা।


এদিকে, এই চক্রটির বিরুদ্ধে বর্তমানে একাধিক অভিযোগ উঠে আসছে। তারা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে অসহায় সুন্দরী নারীদের নানা রকম প্রলোভন দেখিয়ে বিদেশে পাঠান। তবে একবার বিদেশে পাঠানোর পরই সেই নারীর জীবনে সব থেকে বড় বিপদ নেমে আসতো। এমনকি সেই নারীর পরিবার থেকেও কোনো অভিযোগ করা হলে তা আমলে নেওয়া হতো না। অবশেষে এই ডাক্তার আটক হয়েছেন। তাকে আটক করার পর অনেক ভুক্তভোগী পরিবার বর্তমানে মুখ খুলছে।