প্রেম মানে না কোনো বাধা। প্রেমের টানে প্রায় সময় ভিন দেশ থেকে অনেক তরুণী দেশে এসেছে এমন সংবাদ উঠে এসেছে। তেমনি ভারত থেকে প্রায় সময় প্রেমের টানে তরুণী বাংলাদেশে আসেন। তবে বাংলাদেশে অবৈধ ভাবে প্রবেশের কারণে অনেকে গ্রেফতার হন। এবার এক ভারতীয় কিশোরী বাংলাদেশে প্রেবেশ করে বিপাকে পড়েছেন। যানা গেছে ওই ভারতীয় তরুণীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এবার এই ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত প্রকাশ্যে এলো।

প্রেমের টানে ভারত থেকে বাংলাদেশ এসে পুলিশের হাতে ধরা খেলেন প্রীতি পন্ডিত নামে এক কিশোরী। আজ রবিবার দুপুরে প্রেমিক মিলন পালিয়ে গেলেও তার সহযোগীসহ ওই কিশোরীকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। এর আগে শনিবার দুপুরে মিঠাপুকুর উপজেলার রানীপুকুর ইউনিয়নের নূরপুর বালাপাড়া এলাকার জনৈক লতিফুল ইসলামের বাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

রংপুর সদর কোতয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) মমতাজ আলী জানান, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার মন্টু পন্ডিতের মেয়ে প্রীতি পন্ডিতের (১৭) সঙ্গে রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুস্করিণী ইউনিয়নের মহির উদ্দিনের ছেলে মিলনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পরিচয় ঘটে। এরপর দু’জনের মধ্যে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। সেই টানে গত ২৪ জুন ভারত থেকে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আসে প্রীতি। গত কয়েকদিন ধরে রংপুরের সদ্যপুস্করিণী ইউনিয়নের পালিচড়া ফাজিল খা গ্রামে মিলনের বাড়িতে অবস্থান করছিল প্রীতি।

রংপুর সদর কোতয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) আরো জানান, এ খবর পেয়ে খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে অভিযানে নামে পুলিশ। তবে পুলিশের অভিযানের খবর পেয়ে পালিয়ে যায় তারা। পরে মিলনের সহযোগী একই গ্রামের বাবলু মিয়ার ছেলে হাবিবুর রহমানকে (২৪) পার্শ্ববর্তী মিঠাপুকুর উপজেলার রানীপুকুর ইউনিয়নের নূরপুর বালাপাড়া এলাকার জনৈক লতিফুল ইসলামের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় গ্রেপ্তার করা হয় প্রীতি পন্ডিতকেও। এ ঘটনায় থানার এসআই জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে মানবপাচার আইনে তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গ্রেপ্তারকৃত দুইজনকে রংপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে।


উল্লেখ্য, বর্তমান সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অপরিচিত লোকের সঙ্গে পরিচয় করে অনেকে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। আর একটা সময় কিশোরীরা প্রেমের টানে এক দেশ থেকে অন্য দেশে পাড়ি দেন। তবে প্রেমের টানে অন্য দেশে গিয়ে কিশোর বা কিশোরীরা বড় রকমের বিপদে পড়েন। তেমনি এই কিশোরী প্রেমের টানে বাংলাদেশে এসে পুলিশের হাতে গ্রেফতরা হলেন।