এই কালচার কেবল আমাদেরকে আরও নিচেই নামাবে : ফারুকী

সম্প্রতি প্রশ্ন পত্রে মাধ্যমে একজন ব্যক্তি সম্পর্কে কুৎসা রটানো কতটা হীনমন্যতার পরিচয়। যে কোনো ব্যক্তির সম্পর্কে লেখার আগে একাধিক বার চিন্তা করা উচিত। অথচ আমাদের দেশে এ বিষয়টি কালচারে পরিণত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সকলে সোচ্চার না হলে আগামী দিনে এমন পরিস্থিতির স্বীকার হতে হবে সমাজের অনেকেই। প্রশ্নপত্রে কুৎসা র/টানো নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে যা বললেন জনপ্রিয় নির্মাতা মোস্তফা সরিয়ার ফারুকী।

সোশ্যাল মিডিয়ায় বে/শ সরব থাকেন জনপ্রিয় তারকা নির্মাতা মোস্তফা সরিয়ার ফারুকী। ফেসবুক স্ট্যাটাসে বিভিন্ন বিষয়ে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন তিনি। এবার পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে কু/ৎসা র/টনোর নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন এই নির্মাতা।

রোববার (১৩ নভেম্বর) রাতে ফারুকী তার ভেরিফায়েড আইডিতে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন,রোববার (১৩ নভেম্বর) রাতে ফারুকী তার ভেরিফায়েড আইডিতে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে একজন লেখক বা খেলোয়াড় বা অন্য কোনো ব্যক্তির নাম নিয়ে এমন কুরুচিপূর্ণ প্রশ্ন কীভাবে করা যায়?? আমরা ক্রমশ ব্যক্তিগত কুৎসাকে রাষ্ট্রীয় স্পেসে নিয়ে যাচ্ছি। এই কালচার কে/বল আমাদেরকে আরও নি/চেই নামাবে।

তিনি আরও লেখেন, কারো লেখা আপনার ভালো লাগতে পারে, কারো লেখা খা/রাপ লাগতে পারে। কিন্তু কারর সম্পর্কে কুৎসা রটানোর এই অধিকার আপনাকে কে দিয়েছে?

নির্মাতা বলেন, এই প্রশ্ন প্রণয়নের সাথে জড়িত ব্যক্তি কতটা নিচু মনের হতে পারে তা ভাবার চেষ্টা করছি! মনে এত বিষাক্ত উপাদান নিয়ে সে কীভাবে বেঁচে থাকেন কে করে? সে কতটা অসুখী হতে পারে? আমি সত্যিই তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি।

প্রসঙ্গত, কতটা খারাপ মনের অধিকারী হলে এমন কুরুচিপূর্ণ কথা বলতে পারেন ওই ব্যক্তি মন্তব্য করেন জনপ্রিয় এই নির্মাতা। তিনি বলেন, এই কালচার থেকে বের হতে না পারলে আগামী দিনে আরো ভয়াবহতা দেখতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *