বাংলাদেশি যুবককে ভালোবেসে ইতালিয়ান তরুণী কক্সবাজারে

ভালোবেসে প্রিয় মানুষটিকে পেতে পৃথিবীর এক প্রান্তে থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে আসার ঘটনা নতুন নয়। জাতি ধর্ম, বর্ণ ছাড়তে রাজি ভালোবাসার মানুষকে পেতে। এবার প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে বাংলাদেশি যুবক রুনেক্স বড়ুয়াকে বিয়ে করতে ছুটে এসেছেন ইতালির তুরুণী রুবের টা। ভালোবাসার সম্পর্ককে তারা বিয়ের পরিণতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বাংলাদেশি যুবককে ভা/লোবেসে রুবের টা (২৩)নামে এক ই/তালিয়ান তরুণী কবাজারের রামুতে এসেছেন। গত বুধবার (৯ নভেম্বর) রামু উপজেলা সদরের হাইটুপি বড়ুয়া পাড়ার ফরাসি প্রবাসী বিকাশ বড়ুয়ার ছেলে রুনেক্স বড়ুয়া (২৮)সঙ্গে ওই তরুণী ইতালির সার্দেনিয়া শহর থেকে বাংলাদেশে আসেন।। তাকে দেখতে স্থানীয় লোকজন ভিড় করছেন রুনেক্সের বাড়িতে।

জানা গেছে, প্রায় তিন বছর আগে ইতালিতে গিয়েছিলেন রুনেক্স। সেখানে কাজের সূত্রে সে দেশের তরুণীর রুবেটার সঙ্গে পরিচয় হয়। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে প্রেমের করার পর তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। চলতি মাসেই বিয়ে করবেন তারা।

ইতালি প্রবাসী রুনেক্স বড়ুয়া বলেন, আমি ইতালিতে গিয়ে একটি হোটেলের রিসিপশন সেক্টরে কাজ করি। সেখানে পরিচয় হয় রুবেটার সঙ্গে। পরিচয় থেকে শুরু হয় প্রণয়। শেষ পর্যন্ত বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে তাকে দেশে নিয়ে আসি বিয়ে করার জন্য। রুবেট সবার সাথে মিশে গেছে । এমনকি বাইরের আত্মীয়দের সঙ্গেও অনায়াসে মিশে যাচ্ছে। তার আচরণে সবাই খুশি।

এদিকে, কিছু ভাষাগত সমস্যার কারণে কিছুটা বাধা থাকলেও রুবের মানিয়ে নিচ্ছেন। পরছেন বাঙালি পো/শাকও। হবু বরকে নিয়ে ঘুরছেন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন স্থানে।

ইতালিয়ান তরুণী রুবের টা বলেন, পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকি না কেন, আমরা সবাই মানুষ। তাই মানুষ হিসেবে দেশ বা বর্ণের ভেদাভেদ থাকা উচিত নয়। সেই মানসিকতার কারণেই আমি রুনেক্সকে পছন্দ করি। আমরা বিয়ে করে সারা জীবন একসাথে কাটাতে চাই।

রুনেক্সের ভাই শন বড়ুয়া বলেন, ইতালি থেকে একটি মেয়ে এতদূর আসায় আমরা বিস্মিত। এতে আমরা খুশি। আমরা তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।

রুনেক্স বড়ুয়ার মা সুমি বড়ুয়া বলেন, আমার ছেলেকে নিয়ে বিদেশি মেয়ে এসেছে আমরা খুবই খুশি। তার আগমনে আমাদের বাড়িতে উৎসবের আমেজ। খুব শিগগিরই খুব ধুমধাম করে তাদের বিয়ের আয়োজন করব।

প্রসঙ্গত, ভালোবাসার সম্পর্কে বিয়েতে রুপ দিতে বাংলাদেশের এসেছি ওই তরুণী। তবে বাংলাদেশকে তার খুব ভাললেগেছে বলেন জানান ইতালিয়ান এই তরুণী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *