জিয়া কোন সেক্টরে যুদ্ধ করেছেন, কোনো যুদ্ধের গৌরবগাঁথা পাওয়া যায় না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের স্বাধীনতার জন্য যারা জীবনের মায়া না করে ঝাপিয়ে পড়ে দেশকে হানাদারমুক্ত করেছেন তাদের কোন কারন ছাড়াই হ/ত্যা করা হয়েছে। ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের জন্য পরিকল্পনা করে এসব অপকর্মকান্ড ঘটানো হয়েছিল। হ/ত্যার শিকার এই মানুষ গুলোর পরিবারে তাদের হারিয়ে অসহায়। এসব হ/ত্যার বিচার করা হবে মন্তব্য করে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, যারা বিনা কারণে মুক্তিযোদ্ধাদের হ/ত্যা করেছে তাদের বিচার বাংলার মাটিতে হবে। তিনি বলেন, ক্যুর নামে হ/ত্যা। কথায় কথায় মৃ/ত্যুর হোলি খেলেছে তার বিচার হবে। এজন্য একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী ন্যায়ের পক্ষে আছেন, তিনি যখন আ/ছেন তখন ন্যায়বিচার হবে। শেখ হাসিনা যু/দ্ধাপরাধীদের বিচার, বঙ্গবন্ধু হ/ত্যাকান্ডের বিচার করেছেন।

আজ সোমবার (৭ নভেম্বর) কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর শহীদ মু/ক্তিযোদ্ধা পরিবার আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশ শাসন করা চার নেতাকেও তারা হ/ত্যা করেছে। ৭ নভেম্বর বিপ্লবের নামে কত সন্তানের বাবাকে হ/ত্যা করা হয়েছিল বিপ্লবের নামে। তাদের লা/শ কোথায় ছিল তা তাদের পরিবারও জানে না। আমরা যু/দ্ধাপরাধীদের বিচার করেছি। তাদের মৃ/ত্যুর পর তাদের স্বজনদের কাছে লা/শ পৌঁছে দিয়েছি। সেই বিপ্লবের সময় নি/হত সন্তানের ভাগ্যেও তা জোটেনি।

তিনি আরও বলেন, আমি ঢাকা জেলার পশ্চিমাঞ্চলের ২ নম্বর সেক্টরে মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফের অধীনে যু/দ্ধ করেছি। খালেদ মোশাররফ মা/রা গেছেন বলে মেলাঘর ক্যাম্পে আমাদের মধ্যে কান্নার রোল পড়ে গেয়েছিল ছিল। কিন্তু না, সেদিন তিনি যু/দ্ধের ময়দানে মা/রা যাননি। তিনি ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর মা/রা যান।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী যখন সবকিছু নিয়ন্ত্রণে রেখে সঠিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন, দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে যাচ্ছেন, তিনি যখন ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করছেন, তখন তার বিরুদ্ধে আবারও ষ/ড়যন্ত্র হচ্ছে। আমাদের বিচারকের গাড়িতে হা/মলা হয়েছে। যারা ক্যু ক/রেছে, যারা আমাদের মু/ক্তিযোদ্ধাদের অন্যায়ভাবে হ/ত্যা করেছে, তাদের শাহাদাত বরণ করতে বাধ্য করেছে, তাদেরও বিচার হবে, ইনশাআল্লাহ।

এ সময় সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, তারা ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধাদের হ/ত্যা করেছে, ১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবর ক্যু করে হ/ত্যা করেছে। কেন জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে হ/ত্যা করেছিলেন, ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধাদের হ/ত্যা করল। কারণ জিয়া পাকিস্তানের হয়ে অনুপ্রবেশকারী। আমাদের ভেতর থেকে পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছে। জিয়া কোন সে/ক্টরে যু/দ্ধ করেছেন, কোনো যু/দ্ধের গৌরবগাঁথা পাওয়া যা/য়? যায় না।

মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীর উত্তমের মেয়ে মাহজাবিন খালেদ, শহীদ কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদা বীর বিক্রমের মেয়ে নাহিদ ইজাহার খান, বীর মু/ক্তিযোদ্ধা সার্জেন্ট সাইদুর রহমানের সন্তান কামরুজ্জামান মিয়া লেলিন, শহীদ সার্জেন্ট দেলোয়ার হোসেনের ছেলে নুর আলম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

প্রসঙ্গত, মুক্তিযোদ্ধাদের অন্যায় ভাবে যারা হ/ত্যা করেছেন তাদের বিচারের আওতায় আনা হবে মন্তব্য করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, হত্যাকারীদের কোনো রক্ষা নেই।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *