দুর্ভিক্ষ যতটা না প্রাকৃতিক তার চেয়ে বেশি দায়ী সরকার : নুর

সরকারের লাগামহীন লু/টপাট ও দু/র্নীতির ধারাবিকতায় দেশের অর্থনীতি হু/মকির মুখে পড়েছে। এই সরকার দীর্ঘ দিন ক্ষমতা থেকে দেশে লুটের রাজ্য গড়ে তুলেছে। অথচ তার দলের মন্ত্রী-এমপিরা বক্তব্যে দেশে উন্নয়নে ভাশিয়ে দিচ্ছে। সরকার বুঝতে পেরেছে দেশের মানুষ তাদের এসব অকর্মের কথা জানতে পেরেছে সে জন্য বিরোধী গুলোর সভা-সমাবেশে হা/মলা চালাচ্ছে। দেশে দুর্ভিক্ষ হতে পারে সরকারে এমন বক্তব্যে সমালোচন করে যা কথা জানালেন গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর।

‘দু/র্ভিক্ষ যতটা না প্রা/কৃতিক তার চে/য়ে বেশি দায়ী স/রকার। তারা প্রতিবছর টাকা বিদেশে পাচার করে। ১৪ বছরে অনেক টাকা পাচার হয়েছে। এগুলো নিয়ে তাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। এখন যদি আওয়ামী লীগের তিনশ সংসদ সদস্যে, মন্ত্রী ও আ/মলাদের বাড়িতে অভি/যান চালানো হয় তাহলে ডলার ভর্তি ব্রিফকেস পাবেন।

বুধবার (নভেম্বর) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূর এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর মুক্তিযো/দ্ধাদের হাতে মুক্তিযোদ্ধারা নি/হত হয়েছেন। গণতন্ত্রকে হ/ত্যা করা হয়েছে গণতন্ত্রের সৈনিকদেরকে দিয়ে। কে করেছে, কেন করেছে? কোনো জাতীয় নেতারা বাড়িতে বা কোনো সমাবেশে পতাকা তুলতে সাহস পাননি। বরং ছাত্রদের নি/রুৎসাহিত করা হয়েছে । তারপরও সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বে মুক্তিযু/দ্ধার সংগ্রামকে বেগবান করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য জাতীয় নেতৃবৃন্দের সামনে সব বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে ছাত্রদের নিয়ে যাওয়া হয়।

১৯৭৪ সালের দুর্ভিক্ষের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু তার নেতাদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। তিনি আক্ষেপ করে বলেছিলেন, আমি যখন ভিক্ষা করে আনি, আমার চা/টার দল তা খে/য়ে ফেলে। তিনি তার দলের লোকদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। তখন জাসদের লোকজনকে হ/ত্যা করা হয়েছে। আজ প্রধানমন্ত্রীও তার বাবার উত্তরাধিকার বহন করছেন। তার বাবা বাকশাল ঘোষণা করেন আর তিনি ২০১৪ সাল থেকে সে কায়দায় রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন। সে সময় মুক্তিযো/দ্ধারা ছিলেন। তারা অনেক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম হয়। আজ আমরা তা করতে পারি না। আমি রাস্তায় নামতে পারছি না। হা/মলা, মা/মলা, গু/ম, খু/ন, আওয়ামী লীগের দুর্নীতি আমরা এখন হু/মকির মাধ্যমে দেখছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সমালোচনা করে তিনি বলেন, তার দলের লোকজন প্রকাশ্যে হু/মকি দিচ্ছে। সর্বশেষ হেফাজতে হবে বলে তিনিও হু/মকি দিলেন। তার মানে এটা সত্য যে সে হেফাজতে গণহ/ত্যা করেছে। ক্ষমতার পরিবর্তন হলে শাপলা চত্বর হ/ত্যাকাণ্ডের বিচার করতে হবে। বিডিআর বিদ্রোহের নামে দক্ষ ও মেধাবী দেশপ্রেমিক অফিসারদের পরিকল্পিতভাবে হ/ত্যার জন্য এই সরকার দায়ী।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির উত্থান প্রসঙ্গে নূর বলেন, স্বাধীনতার পর জাসদের উত্থান খুবই প্রাসঙ্গিক ছিল। স্বাধীনতার সময় ২৫ হাজার জাসদের নেতাকর্মীকে হ/ত্যা করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে হলে জাসদের ইতিহাস জানতে হবে।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, ভাসানী আনুসারি পরিষদের আহ্বায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানোয়ার হোসেন তালুকদার, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির কার্যকরী সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, সহ-সভাপতি তানিয়া হকসহ অনেকে।

প্রসঙ্গত, সরকার জোর করে ক্ষমতা দখল করে রেখে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে বলে মন্তব্য করেন গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর। তিনি আরও বলেন, সরকারে নেতাকর্মী ও আমলাদের দাপটে আজ এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *