শ্বশুর বাড়ি কিশোরগঞ্জে গিয়ে এবার প্রশংসায় ভাসছেন আশরাফুল

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে জাতীয় দল থেকে বাইরে রয়েছেন। এই তারকা ক্রিকেটার এখনো বাংলাদেশ জাতীয় দলে ফেরার চেষ্টা করে যাচ্ছে। ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি এই তারকা ক্রিকেটার অনেক সামাজিক কাজেও অংশ গ্রহণ করছেন। তেমনি তিনি দেশের সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে বক্তব্য দেন। তেমনি গত দুদিন আগে শ্বশুর বাড়ি কিশোরগঞ্জে গিয়ে একটি স্কুলে বক্তব্য দেন আশরাফুল। তার সেই কাজে এবার তিনি প্রশংসায় ভাসছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোহাম্মদ আশরাফুল নিয়ে অনেকে প্রশংসা করে কমেন্ট করছেন।

শ্বশুর বাড়ি কিশোরগঞ্জে গিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে ডে”ঙ্গু নিয়ন্ত্রণে এ’ডি’স মশার বংশবৃদ্ধি রোধে সচেতনতা তৈরি প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। এই সময় ছাত্র-ছাত্রীরা জাতীয় দলের সাবেক এই তারকা ক্রিকেটারকে পেয়ে উল্লাসে ফেটে পড়েন।

সোমবার কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয় ও এসভি সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের কয়েকশ শিক্ষার্থীর মধ্যে ডেঙ্গুর ভ”য়া”ব”হ”তা তুলে ধরে এ বিষয়ে নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন আশরাফুল। শহরের ঐতিহ্যবাহী এসভি সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অনুষ্ঠান শেষে প্রায় দুই শতাধিক ভক্তকে অটোগ্রাফ দেন তিনি। অটোগ্রাফের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা এ তারকার ক্রিকেটারের সঙ্গে ছবি তুলতে ভিড় জমান।

পরে বিকেলে কিশোরগঞ্জ পৌরসভা মিলনায়তনে ডে”ঙ্গু প্রতিরোধমূলক এক পরামর্শ সভায় অংশ নেন মোহাম্মদ আশরাফুল। সেখানে এ”স”ভি সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শাহনাজ কবীর আশরাফুলের প্রশংসা করে বলেন, ‘সকালে আশরাফুল কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে কর্মসূচিতে ছিলেন। তার পর আমার স্কুলে গিয়েছিলেন। আশরাফুল তরুণদের কাছে যে কতোটা জনপ্রিয় তা আজ আমার স্কুলের কর্মসূচিতে দেখেছি। প্রায় দুই শতাধিক মেয়কে তিনি অটোগ্রাফ দিয়েছেন, একটুও বিরক্ত হননি।’

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক একটা সময় দেশের হয়ে অনেক রেকর্ড করেছেন। তার মাধ্যমে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল অনেক সুনাম বয়ে আনে। তিনি দলে ভালো খেলে দলের জয় নিয়ে আসেন। তবে গত কয়েক বছর ধরে এই সাবেক অধিনায়ক জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন। তিনি এখনো দলে ফেরার জন্য আপ্রান চেষ্টা করে চলেছে। এর পাশাপাশি তিনি অনেক সমাজিক কাজ করছেন। তাকে আবারও জাতীয় দলে দেখতে চায় তার ভক্তরা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *