৩২ হাজার বিদেশি শ্রমিক নেবে মালয়েশিয়া, জানা গেল কোন খাতে শ্রমিক নেবে

বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে মালয়েশিয়া। দেশটিতে অসংখ্য বিদেশি মানুষ বসবাস করছেন। কেউ এশটিতে্ব চাকরি করছেন অবার কেউ ব্যবসা করছেন। এছাড়া কাজের সন্ধানে প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ মালয়েশিয়া গিয়ে থাকেন। দেশটির সরকার প্রায় সময় বিদেশি শ্রমিক নেওয়ার কথা বলে। তেমনি এবার দেশটির সরকার কয়েক হাজার বিদেশি শ্রমিক নেওয়ার কথা বলেছে। তবে দেশটিতে নিয়ম মেনেই প্েবেশ করতে হবে। এবার জানা গেল দেশটিতে কোন খাতে শ্রমিক নেওয়া হবে। এই বিষয়ে বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশ পেল।

বৃক্ষরোপণ খাতে ৩২ হাজার বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ দেবে মালয়েশিয়া। সরকারের পক্ষ থেকে বাগান খাতে শ্রমিকের ঘাটতি দূর করতে ৩২ হাজার বিদেশি শ্রমিক নিয়োগে দেশটির মন্ত্রিসভা সম্মত হয়েছে এবং জরুরি প্রয়োজনে উৎসদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগের প্রস্তুতি চলছে।

এছাড়া দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রণালয় (এমওএইচআর) স্ট্যান্ডিং অর্ডার অব অপারেশন (এসওপি) খসড়া করেছে এবং কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের (কেএলআইএ) কাছে একটি বিদেশি শ্রমিক কো’য়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি করেছে। যেখানে একসঙ্গে দুই হাজার শ্রমিক থাকতে পারবে।
শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারভানান এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

সারাভানান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের (অর্থনীতি বিষয়ক) মুস্তাপা মোহাম্মদ গত ১২ সেপ্টেম্বর এক বিবৃতিতে বলেন, পাম-অয়েলসহ বাগান খাতে জনবলের ঘাটতি রয়েছে, তা দূরীকরণে মানবসম্পদ মন্ত্রণালয় একমত পোষণ করেছে। রোপণ খাতে শ্রমিকের অভাব জাতীয় আয়ে ক্ষতির ঝুঁকি তৈরি করেছে যা বছরে ২০ বিলিয়ন রিঙ্গিত, বিশেষ করে পাম-অয়েল খাতে।

এক্ষেত্রে, কেএসএম স্থানীয় শ্রমিকদের দিয়ে শূন্যপদ পূরণ করতে আগ্রহী করার পরও কোনো সাড়া মেলেনি। ফলে, বিদেশি শ্রমিক দিয়ে শূন্যস্থান পূরণ করা দরকার বলে ব্যাখ্যা করেন তিনি।

মুস্তাপা তার রিপোর্টে বলেছেন, পাম-অয়েল শিল্পকে বড় সমস্যার মুখ থেকে বাঁচাতে তিন সপ্তাহের মধ্যে বিদেশি শ্রমিকের অভাবের সমস্যা সমাধান করা হবে।

এদিকে পাম বাগানের শ্রমিক সংকট দূরীকরণে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে মালয়েশিয়ার চাইনিজ চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এসিসিসিআইএম)। শুক্রবার এক বিবৃতিতে এসিসিসিআইএম জানিয়েছে, এই পদক্ষেপ পাম-অয়েল শিল্পসহ বৃক্ষরোপণ খাতকে স্বস্তি দেবে।

উল্লেখ্য, দেশটি প্রায় সময় বিদেশি শ্রমিক তাদের দেশে নিয়ে থাকে। তবে সকল নিয়ম-কানুন মেনেই দেশটিতে প্রেবেশ করতে হবে। কোনো অনিয়ম করে কেউ দেশটিতে প্রবেশ করতে পারবে না। আর এই সময় কিছু অসাধু দালাল নানা রকম মিথ্যা কথা বলে দেশটিতে যাওয়ার সংবাদ দিতে পারে। যার কারণে ওই সকল অসাধু দালালদের থেকে সাবধানে থাকতে হবে। এমনকি এই সুযোগে কিছু দালাল অসহায় মানুষদের কাছ থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিতে পারে এমনটা মনে করছেন অনেকে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *