বর্তমানে দেশে আল জাজিরার সংবাদ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। এই সংবাদ মাধ্যমটির বিরুদ্ধে এর আগে অভিযোগ উঠেছে তারা নানা রকম মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করেছে। আর এবার আল জাজিরার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তারা বাংলাদেশের সম্পর্কে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ্য করেছে। আর এরপর থেকে ক্ষমতাসীন দলের অনেকে আল জাজিরা কে নিয়ে মুখ খুলছেন। তেমনি এবার ওবায়দুল কাদের আল জাজিরার প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খুলেছেন।

শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে আল জাজিরার প্রতিবেদন উদ্দেশ্যমূলক ও অপপ্রচারের নোংরা বহিঃপ্রকাশ বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে। সরকারের সমালোচনাও করছে। দেশের এত স্বনামধন্য ও সরব (ভাইব্রেন্ট এবং অ্যাক্টিভ) মিডিয়া যেখানে কোনো ধরনের তথ্য পায়নি, সেখানে আল জাজিরা টেলিভিশনে শেখ হাসিনাকে নিয়ে অসত্য তথ্যপ্রচার অত্যন্ত নিন্দনীয়।

বুধবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, লন্ডনে বসে যারা দেশবিরোধী অ’পপ্রচার করছে এবং উ/স্কা/নি দিচ্ছে; এই প্রতিবেদনের সঙ্গে সেই অশুভ চক্রের যোগসাজশ রয়েছে। জনগণ মনে করেন এ প্রতিবেদন লন্ডনভিত্তিক অংশ।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকার অন্যায়-অনিয়ম আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ইতোমধ্যে সরকার শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা (জিরো টলারেন্স) নীতি স্পষ্ট করেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাংলাদেশের আইন নিজস্ব গতিতে ও স্বাধীনভাবে চলছে। দুর্নীতি দমন কমিশন নিজস্ব আইনগত ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব অনুযায়ী চাপমুক্ত হয়ে কাজ করছে। কোনো ব্যক্তি বিশেষের দায়কে সরকার প্রধানের সঙ্গে লিঙ্ক করা সাংবাদিকতার নীতিবোধকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। এটি সঠিক সাংবাদিকতা নয়।

৭৫ পরবর্তী সময়ে দেশে সবচেয়ে সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার সাহসী ও সুদক্ষ নেতৃত্ব বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে-বিদেশে বসে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ষ/ড়/য/ন্ত্র ও অপপ্রচার করা কোনো কাজে আসবে না বরং বুমেরাং হবে। জনগণ শেখ হাসিনার পাশে রয়েছে, বিগত সময়ে এতো অপপ্রচারের পরেও চলমান পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিপুল বিজয় তারই প্রমাণ।

আল জাজিরা টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে দেশবিরোধী অপশক্তির এজেন্ডা বাস্তবায়নে সহযোগী না হয়ে এ ধরনের উদ্দেশ্যমূলক, বিভ্রান্তিকর এবং একপেশে প্রতিবেদন বন্ধের আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি মনে করেন, যারা দেশের স্বাধীনতা ও দেশের উন্নয়ন, অর্জন ও অগ্রগতিকে এখনো মেনে নিতে পারেনি তারাই এই প্রতিবেদনের কৌশলী ষ/ড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় লিপ্ত।

উল্লেখ্য, এই আল জাজিরার বিরুদ্ধে এর আগেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে নানা রকম অভিযোগ উঠে এসেছে। আর এই সকল অভিযোগের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আল জাজিরাকে নিষিদ্ধ করা হয়। তবে এবার দেশের সম্পর্কে যে সকল সংবাদ প্রকাশ করেছে আল জাজিরার তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে।
আল জাজিরার প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খুলেছেন ওবায়দুল কাদের
Logo
Print

জাতীয়

 

বর্তমানে দেশে আল জাজিরার সংবাদ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। এই সংবাদ মাধ্যমটির বিরুদ্ধে এর আগে অভিযোগ উঠেছে তারা নানা রকম মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করেছে। আর এবার আল জাজিরার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তারা বাংলাদেশের সম্পর্কে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ্য করেছে। আর এরপর থেকে ক্ষমতাসীন দলের অনেকে আল জাজিরা কে নিয়ে মুখ খুলছেন। তেমনি এবার ওবায়দুল কাদের আল জাজিরার প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খুলেছেন।

শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে আল জাজিরার প্রতিবেদন উদ্দেশ্যমূলক ও অপপ্রচারের নোংরা বহিঃপ্রকাশ বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে। সরকারের সমালোচনাও করছে। দেশের এত স্বনামধন্য ও সরব (ভাইব্রেন্ট এবং অ্যাক্টিভ) মিডিয়া যেখানে কোনো ধরনের তথ্য পায়নি, সেখানে আল জাজিরা টেলিভিশনে শেখ হাসিনাকে নিয়ে অসত্য তথ্যপ্রচার অত্যন্ত নিন্দনীয়।

বুধবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, লন্ডনে বসে যারা দেশবিরোধী অ’পপ্রচার করছে এবং উ/স্কা/নি দিচ্ছে; এই প্রতিবেদনের সঙ্গে সেই অশুভ চক্রের যোগসাজশ রয়েছে। জনগণ মনে করেন এ প্রতিবেদন লন্ডনভিত্তিক অংশ।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকার অন্যায়-অনিয়ম আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ইতোমধ্যে সরকার শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা (জিরো টলারেন্স) নীতি স্পষ্ট করেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাংলাদেশের আইন নিজস্ব গতিতে ও স্বাধীনভাবে চলছে। দুর্নীতি দমন কমিশন নিজস্ব আইনগত ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব অনুযায়ী চাপমুক্ত হয়ে কাজ করছে। কোনো ব্যক্তি বিশেষের দায়কে সরকার প্রধানের সঙ্গে লিঙ্ক করা সাংবাদিকতার নীতিবোধকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। এটি সঠিক সাংবাদিকতা নয়।

৭৫ পরবর্তী সময়ে দেশে সবচেয়ে সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার সাহসী ও সুদক্ষ নেতৃত্ব বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে-বিদেশে বসে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ষ/ড়/য/ন্ত্র ও অপপ্রচার করা কোনো কাজে আসবে না বরং বুমেরাং হবে। জনগণ শেখ হাসিনার পাশে রয়েছে, বিগত সময়ে এতো অপপ্রচারের পরেও চলমান পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিপুল বিজয় তারই প্রমাণ।

আল জাজিরা টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে দেশবিরোধী অপশক্তির এজেন্ডা বাস্তবায়নে সহযোগী না হয়ে এ ধরনের উদ্দেশ্যমূলক, বিভ্রান্তিকর এবং একপেশে প্রতিবেদন বন্ধের আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি মনে করেন, যারা দেশের স্বাধীনতা ও দেশের উন্নয়ন, অর্জন ও অগ্রগতিকে এখনো মেনে নিতে পারেনি তারাই এই প্রতিবেদনের কৌশলী ষ/ড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় লিপ্ত।

উল্লেখ্য, এই আল জাজিরার বিরুদ্ধে এর আগেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে নানা রকম অভিযোগ উঠে এসেছে। আর এই সকল অভিযোগের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আল জাজিরাকে নিষিদ্ধ করা হয়। তবে এবার দেশের সম্পর্কে যে সকল সংবাদ প্রকাশ করেছে আল জাজিরার তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে।
Template Design © Joomla Templates | GavickPro. All rights reserved.