বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে আজ ৪৮ বছর কিন্তু বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে যেসব ’সীমান্ত পিলার’ রয়েছে তার মধ্যে ৮ হাজারেরও বেশি পিলারে ইংরেজিতে খোদাই করে লেখা রয়েছে IND-PAK যা INDIA-PAKISTAN এর সংক্ষিপ্ত রূপ। সম্প্রতি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এই PAKISTAN/PAK লেখা মুছে ফেলে BANGLADESH বা BD লেখার কার্যক্রম শুরু করছে।
এই বিষয়টি আমলে নিয়ে আগেই কাজটি করা উচিৎ ছিল বলে মনে করেন, এই সমস্ত পিলার চোখে পড়া স্থানীয় বাসিন্দাদের। এখন থেকে এই সমস্ত পিলারে আর PAKISTAN/PAK লেখা থাকবে না। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে অবস্থিত এই সকল সীমান্ত পিলারে থাকবে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের নাম।

১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তান বিভক্তির পর এই সব পিলার বসানো হয়েছিল। মূলতঃ বাংলাদেশের সাতক্ষীরা, যশোর, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, জামালপুর, সুনামগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, কুমিল্লা ও চট্টগ্রাম জেলাগুলোর সীমান্তবর্তী বেশিরভাগ পিলারগুলোতে PAKISTAN/PAK লেখা ছিল।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে পাকিস্তান হতে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের এতো বছর পরও সীমান্ত পিলারগুলি হতে PAKISTAN/PAK শব্দটি মুছে দিয়ে তদস্থলে স্বাধীন বাংলাদেশের নাম না লেখার বিষয়টি সীমান্তের মানুষ এবং যারা বিষয়টি জানেন তাদের কাছে সত্যিই বিড়ম্বনার। বিষয়টি নজরে আসার সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোঃ সাফিনুল ইসলাম, বিজিবিএম, এনডিসি, পিএসসি অধীনস্থ রিজিয়নসমূহকে প্রয়োজনীয় দিক নিদের্শনা প্রদান করেন এবং বিজিবি’র নিজস্ব তহবিল দিয়ে ঐসকল সীমান্ত পিলারের PAKISTAN/PAK লেখা পরিবর্তন করে BANGLADESH/BD লেখার কাজ শুরু করেন।

বিজিবি’র সদস্যরা অত্যন্ত নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করে ইতোমধ্যেই সীমান্ত পিলারসমূহে PAKISTAN/PAK লেখা মুছে BANGLADESH/BD লেখার কাজটি প্রায় সম্পন্ন করে ফেলেছে। PAKISTAN/PAK এর স্থলে BANGLADESH/BD লেখা প্রতিস্থাপনের ফলে বিজিবিসহ সীমান্তবর্তী মানুষের মনোবল আরও অনেকগুন বেড়ে গেছে।

বিজিবি নিজ দায়িত্বে অত্যন্ত নিখুঁতভাবে ও দ্রুত কাজটি সম্পন্ন করবার উদ্যোগ নিয়েছে যা দেখে সীমান্তবর্তী এলাকায় বসবাসরত বাসিন্দাসহ সারাদেশের সর্বস্তরের জনগণ বিজিবিকে সাধুবাদ জানিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ধরনের উদ্যোগ নেবার জন্য বিজিবি’র প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সর্বদা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় প্রস্তুত এবং দেশের কল্যানের জন্য সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি সবসময়ই অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে। বিজিবি নিজ দায়িত্বে এক সময়কার বাংলাদেশের নিপীড়নকারীদের নাম সীমান্ত পিলারগুলো থেকে পরিবর্তন সেই ভূমিকারই একটি অনন্য ও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিজিবি’র সকল সদস্যরা কৃতজ্ঞতা ও অশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছে সীমান্ত পিলারের নাম পরিবর্তনের গুরুত্বপূর্ণ ও মহান দায়িত্ব দেয়ার জন্য ।