ভেজালের শুরু কবে থেকে, কে প্রথম শুরু করেছিল তা আমার জানা না থাকলেও বাঙালিরা যে ’ভেজাল’ নামক জিনিসটাকে ষোলআনা মুন্সীআনার সাথে রপ্ত করেছেন তা তো আমরা হরহামেশাই দেখতে পাচ্ছি। রমজানে তো গণহারে সব মিডিয়াতেই ফলাও করে নিউজ করা হয় এই ভেজালের ব্যাপারে। সচেতনতার অংশ হিসেবে ভেজাল বিরোধী অভিযানের কিছু নির্ভেজাল গল্প শুনুন তাহলে আজ।
২০১৪ সাল। আমার পোস্টিং তখন এপিবিএন-৫ এ ঢাকার উত্তরায়। দায়িত্ব ছিল অপারেশন অফিসার হিসেবে। যেদিন মাদকদ্রব্য ও অন্যান্য কোন অপারেশন থাকতো না, সেদিন করতাম ভেজাল বিরোধী অভিযান। সাথে থাকতো ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদ এলাহি। সে আমার কাছের বন্ধুও বটে।

১. রাজধানীর দক্ষিণখানে একটি ওষুধ কারখানায় টার্গেট। দুইদিন আগেই গামছা আর ময়লা জামা পরে কারখানার শ্রমিক সেজে ঘটনার সত্যতা যাচাই করেছি আমি নিজে। আজ অপারেশনে যাবো। সাথে বেশ কয়েকটি টিভি মিডিয়া। ভেতরে ঢুকলাম। দোতলা একটি ভবন। নীচে সুতা আর গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি। উপরের তলায় ওষুধ কারখানা। ভিতরে ঢুকতেই বিশ্রী একটা গন্ধ নাকের ভিতরে আসতেই বমির উদ্রেক হলো। সামলে নিলাম বমিকে।
কারখানার ভেতরে ওষুধ নিয়ে তাবৎ তামাশার সব কিছুই দেখলাম। না আছে টেস্টিং ল্যাব, না আছে ফার্মাসিস্ট। ইন্টারেস্টিং বিষয় লক্ষ্য করলাম, যেখানে ওষুধ বানাচ্ছে সেখানে গিয়ে। বেশ কিছু নারী শ্রমিক ওষুধ বানাচ্ছেন। আবার কেউ প্যাকেট করছেন। কারো গায়ে কোন এপ্রোন বা হাতে গ্লোভস কোনটিই নেই। অনেকেই পিকপিক করে পান খাচ্ছেন। পুরাই একটা হরিঘোষের গোয়াল।

কাছে গিয়ে দেখলাম আটা-ময়দার সাথে চিনি আর তিতা জাতীয় এক ধরণের কেমিক্যাল দিয়ে বানানো হচ্ছে -নাপা, সিটামল, এন্টাসিডসহ নাম না জানা অসংখ্য ওষুধ। জ্বর-কাশির সিরাপ বানানো হচ্ছে গুড়ের তৈরি শরবত দিয়ে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদ এলাহি এবার ডাকলেন প্রোডাকশন ম্যানেজার সাহেবকে। প্যান্ট-শার্ট পরা স্মার্ট ভদ্রলোক।’এ রকম করে দিনের পর দিন মানুষকে ঠকিয়ে ভেজাল ওষুধ বানানোর কারণ কী, মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন কেন?’

এ রকম প্রশ্ন শুনে তার চুপ থাকার ভাব দেখে মনে হলো পদ্মা নদীর মাঝি উপন্যাসের গণেশের কথা।গণেশের মনের ক্রিয়াগুলো অত্যন্ত শ্লথ গতিতে সম্পন্ন হত, এখন দেখছি এই লোকও সেরকম গণেশ মার্কা। একটু পরে মুখ খুললেন। যা বললেন তাতে মনে হলো ভদ্রলোক ঔষধ শাস্ত্রের পঞ্চকোষ দিব্যি শেষ করেছেন।

অনেক ধানাইপানাই করেলন। কিন্তু এই কানকাটার কথায় কান দেওয়ার সুযোগ নেই। বড় অঙ্কের জরিমানা করা হলো, পাশাপাশি জেলও।

২। ’কাপুড়ে বাবু’ কথাটার অর্থ বাহ্যিক সাজ। এই সাজের অন্যতম উপাদান প্রসাধন সামগ্রী। বর্তমানে বাজারে নকল প্রসাধনীর ছড়াছড়ি। নকল প্রসাধন সামগ্রী ব্যাবহারের ধকল অনেকেই জানলেও কেরানীগঞ্জে কীভাবে এই ভেজাল ও মানহীন কসমেটিকস বা প্রসাধন সামগ্রী তৈরি হচ্ছে সে ব্যাপারে অনেকেই জানেন না। চলুন যাওয়া যাক কেরানীগঞ্জে।

’কসমেটিকস কারখানায় কাজ করেছি দুই বছর। এখন বেকার হয়ে বসে আছি। আপনার কারখানায় কাজ করতে চাই’ এই মর্মে আমার এক সোর্স এর মাধ্যমে আগেই রেকি করে রেখেছিলাম ওই কারখানাটিকে। সবকিছু সেদিন দেখতে পারিনি। শুধু আঁচ করতে পেরেছিলাম যে, প্রসাধনী তৈরির নামে কি ভয়াবহ জিনিস বানাচ্ছে এরা।

আমরা কারখানার ভেতরে ঢোকার আগেই টের পেয়ে যায় ভেজালিয়ারা। অনেকক্ষণ ধরে টরে –টক্কার পরে ফটক খোলা হলো। এতো পুলিশ আর নির্বাহী ম্যাজিস্টেট দেখে কারখানা ব্যাবস্থাপকের পুরাই থরহরি কম্প শুরু হয়ে গেছে। কারণ তাদের উৎপাদিত প্রতিটি পণ্যই ভেজাল। তারা দীর্ঘদিন থেকে ভারত, ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশের নামিদামি ব্র্যান্ডের নাম করে এসব প্রসাধন সামগ্রী উৎপাদন ও বাজারজাত করে আসছিল বলে স্বীকার করলেন তিনি।

দেখলাম ফেসওয়াশ, ক্রিম, লোশন ও স্ক্রাব তৈরির কাঁচামাল হিসেবে ব্যাবহার হচ্ছে- চুনা পাউডার, বস্তাপচা ময়দা, নিম্নমানের হলুদের গুঁড়ো, কাঠের গুঁড়ো, গাম, গ্রিজ আর সাথে বিষাক্ত কেমিক্যাল ও টেক্সটাইল রং। ইংল্যান্ডের বিখ্যাত ব্র্যান্ড ওয়েলস হেলথ কেয়ারের অলিভ ওয়েল বানাচ্ছে সাক্ষাৎ সয়াবিন তেল দিয়ে। এসব দেখে অবাক হয়েছি। রাগে আর ক্ষোভে ভাবছিলাম এই আনাড়ি ভেজাইল্যা লোকগুলোর হাড়মাটি করে দেওয়া উচিৎ।

সবকিছুতে শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপর দোষ চাপিয়ে ক্ষান্ত হই আমরা। কিন্তু সমাজের মানুষ হিসেবে আমাদের প্রত্যেকের উচিৎ স্থানীয়ভাবে এই ভেজালকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া। মনে রাখতে হবে, ভেজালকারবারিরা সবাই এক ঝাড়ের বাঁশ। এই বাঁশ গুলোকে চিরতরে উপড়ে ফেলতে হলে সবাইকে সচেতন হতে হবে, গড়ে তুলতে হবে দুর্বার প্রতিরোধ। আর না হলে ভেজাল শব্দটিও এক সময় সুকান্তের কবিতার মতো `খাঁটি জিনিস’ এই কথাটা রেখো না আর চিত্তে,`ভেজাল’ নামটা খাঁটি কেবল আর সকলই মিথ্যে’ এমন হয়ে যাবে।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক: অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ খান জোন)।

সূত্র:বিডি-প্রতিদিন