মহাজোটের বড় শরিক এইচ এম এরশাদের জাতীয় পার্টির (জাপা) সঙ্গে আওয়ামী লীগের আসন সমঝোতা চূড়ান্ত হয়নি। এ জন্য আওয়ামী লীগ ও জাপা তাদের প্রার্থী তালিকা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেনি। ফলে নৌকা ও লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে কোন আসনে কারা এককভাবে ভোট করবেন, তা গতকাল পর্যন্ত স্পষ্ট হয়নি।
আজ রোববার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। আজকের মধ্যেই নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে কে কোন প্রতীকে ভোট করবেন। অর্থাৎ কে দলের প্রার্থী আর কে জোটের প্রার্থী, সেই তালিকা নির্বাচন কমিশনে দিতে হবে।
শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, জাপাকে ৪০ থেকে ৪২টি আসন দেওয়া হতে পারে।
তবে গতকাল দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এইচ এম এরশাদের জাপাকে ৩০ থেকে ৩২টি আসন ছেড়ে দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা চলছে। এর বাইরে ৮ থেকে ১০টি আসন উন্মুক্ত থাকতে পারে। এসব আসনে আওয়ামী লীগ, জাপা ও অন্য শরিকেরও প্রার্থী থাকবে। এতে জাপা খুশি নয়। শনিবার রাত আটটায় জাপার চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকে তা স্থগিত করা হয়।
এদিকে মহাজোটের আরেক শরিক যুক্তফ্রন্টও তিন আসনে সন্তুষ্ট নয়। শুক্রবার রাতে যুক্তফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক গোলাম সারোয়ার এক বিবৃতিতে এ অসন্তুষ্টির কথা
জানান। যুক্তফ্রন্ট আরও চারটি আসন বাড়তি চাইছে বলে জানা গেছে।