প্রাণ-আরএফএল দেশের খুব নাম করা শিল্পপ্রতিষ্ঠান। তাছাড়া প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের আরও অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তারা শুধু দেশে নয় বহির্বিশ্বেও রফতানি বাণিজ্যে করে থাকে। এতে করে দেশে বিপুল পরিমান অর্থ আসছে। যার ফলে দেশ অনেক উন্নতির দিকে যাচ্ছে। এবার ২০১৬-১৭ অর্থবছরের রফতানি বাণিজ্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পাঁচ প্রতিষ্ঠান সেরা রফতনিকারকের পুরস্কার পেয়েছে। তাদের রফতানি কৃত পণ্য হল- প্লাস্টিক পণ্য ও লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং এবং কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য। রফতানিতে গুরুত্বপূণ ভূমিকা রাখায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দেশের শীর্ষ থাকা এ গ্রুপকে স্বর্ণসহ পাঁচ রফতানি পদক দেয়া হয়েছে।
এ নিয়ে টানা ১৬ বার সেরা সর্বোচ্চ রফতানিকারক হিসেবে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ রফতানিকারকের পুরস্কার অর্জন করল।

২০১৬-১৭ অর্থবছরের এগ্রো প্রসেসিং খাতে (তামাকজাত পণ্য ব্যতীত) সেরা রফতানিকারক হিসেবে প্রাণ এগ্রো লিমিটেড স্বর্ণপদক ও হবিগঞ্জ এগ্রো লিমিটেড ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করেছে।

অন্যদিকে প্লাস্টিক পণ্য রফতানিতে রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছে আরএফএল গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ডিউরেবল প্লাস্টিকস লিমিটেড ও অলপ্লাস্ট বাংলাদেশ লিমিটেড। পাশাপাশি লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য রফতানিতে রৌপ্য পদক পেয়েছে রংপুর মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

রোববার (১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে এসব রফতানি পদক গ্রহণ করেন প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী আহসান খান চৌধুরী, প্রাণ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইলিয়াছ মৃধা, আরএফএল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরএন পাল, অলপ্লাস্ট বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা সাঈদ হোসেন চৌধুরী ও প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (কর্পোরেট ফাইন্যান্স) উজমা চৌধুরী। পাঁচ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পর্যায়ক্রমে এ পুরস্কার নেন তারা।

প্রাণ গ্রুপ ১৯৯৭ সালে ফ্রান্সে এগ্রো প্রসেসিং পণ্য রফতানির মাধ্যমে বৈদেশিক বাণিজ্যে পা রাখে। বর্তমানে বিশ্বের ১৪১টি দেশে প্রাণ-আরএফএল-এর পণ্য পাওয়া যাচ্ছে।

প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের বিপণন পরিচালক কামরুজ্জামান কামাল গনমাধ্যমকে জানান, আমাদের ব্র্যান্ডের ওপর বিশ্বব্যাপী ভোক্তাদের অধিক আস্থা থাকায় এই পদক পাওয়া সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ সবসময়ই ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পণ্য তৈরি করে থাকে। এই সেরা রফতানিকারক পদক পেয়ে আমরা সত্যিই গর্বিত।


তিনি আরও জানান, বর্তমান সময়ে ভারত ও মধ্যপ্রাচ্য প্রাণ-আরএফএল পণ্যের সবচেয়ে বড় বাজার। তাছাড়া ইউরোপ, উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা ও আফ্রিকাসহ বিশ্বের অনেক দেশেই প্রাণ-আরএফএল এর পণ্য যাচ্ছে।