দেশে গরিবের চেয়ে ধনীরা বেশি নিচ্ছে ঋণ নিচ্ছে। বাংলাদেশে বর্তমানে কোটিপতি আমানতকারীর চেয়ে কোটিপতি ঋণগ্রহীতা সংখ্যা বেশি। ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে ঋণ বিতরণ বিষয়ক বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান পর্যালোচনা করে এই চিত্র পাওয়া গেছে।
দেশে ব্যাংক থেকে কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন এমন ঋণগ্রহীতার সংখ্যা বর্তমানে ৯১ হাজার ১৭৫ জন। এসব সূত্র জানায়, ঋণগ্রহীতাদের ঋণের পরিমাণ ৬ লাখ ৪৯ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে সর্বশেষ ২০০৮ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ১০ বছরেই কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন ৬৫ হাজার ৯৩৯ জন। অর্থাৎ, এই সময়ে গড়ে প্রতিবছর কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন ৬ হাজার ৫৯৩ জন। আর তাদের নেওয়া মোট ঋণের পরিমাণ ৫ লাখ ২৬ হাজার ৬২৯ টাকা।
জানা যায়, ২০০৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে কোটিপতি আমানতকারী ছিলেন ১৯ হাজার ১৬৩ জন। এসব আমানতকারীর আমানতের পরিমাণ ছিল ৭৭ হাজার ২৩৯ কোটি টাকা। একইসময়ে দেশে কোটিপতি ঋণগ্রহীতার সংখ্যা ছিল ২৫ হাজার ২০৬ জন। এসব ঋণগ্রহীতার ঋণের পরিমাণ ছিল ১ লাখ ২২ হাজার ৮২৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ কোটিপতি আমানতকারীদের তুলনায় কোটি টাকা ঋণগ্রহীতার সংখ্যা ছিল যেমন বেশি, তেমনি আমানতের টাকার তুলনায় প্রদত্ত ঋণের পরিমাণও ছিল বেশি। এই প্রবণতা পরবর্তী সময়ে আরও বেড়েছে।
২০১৮ সালের ডিসেম্বরের পর্যন্ত তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৫ হাজার ৫৬৩ জনে। তাদের আমানতের পরিমাণ ৪ লাখ ৭৮ হাজার ৬৫৯ কোটি টাকা। এই সময়ে দেশে কোটিপতি ঋণগ্রহীতার সংখ্যা ৯১ হাজার ১৭৫ জন, আর তাদের নেওয়া ঋণের পরিমাণ ৬ লাখ ৪৯ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা। এই সময়েও কোটিপতি আমানতকারীর তুলনায় কোটি টাকা ঋণ নেওয়া ব্যক্তির সংখ্যা ছিল বেশি এবং আমানতের তুলনায় ঋণের পরিমাণও অনেক বেশি।
সূত্র: বিডি২৪লাইভ