মালয়েশিয়া প্রবাসী কয়েকজনের টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে আরেক মালয়েশিয়া প্রবাসীর বিরুদ্ধে আভিযোগ পাওয়া গেছে। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই হাসান আলী ওরফে আব্দুল্লাহ প্রবাসী কয়েকজন তার কাছে টাকা পাবেন বলে স্বীকার করেছেন। তবে টাকা আত্মসাতের বিষয়টি তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার বলে দাবি করেছেন তিনি।
হাসান আলী ওরফে আব্দুল্লাহর বাড়ি পাবনার সাঁথিয়ায় করমজা গ্রামে। তিনি মালয়েশিয়ায় বিল্ডিং কনস্ট্রাকশন প্রতিষ্ঠানে কন্ট্রাকটরের কাজ করেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সেখানে থাকার সময় বাংলাদেশি কয়েকজন প্রবাসীকে দিয়ে তার মাধ্যমে বিদ্যুতের কাজ করিয়ে তাদের পারিশ্রমিক পরিশোধ করেননি।

যাদের দিয়ে কাজ করিয়েছেন তাদের অধিকাংশের বাড়িই পাবনার আমিনপুর থানা এলাকা। তারা হলেন মো. হিরণ মোল্লা (মুরারীপুর), মো, কামরুল হাসান (খলিলপুর), মো. রাজিব মোল্লা (খলিলপুর), ইব্রাহিম ফকির (খলিলপুর), মো. জিলাল মৃধা (ত্রিমহনী স্লুইসগেট), মো. আওলাদ হোসেন (সাভার)।

তাদের ছয়জনের এক মাসের বেশি দিনের বেতন ১৫ থেকে ১৬ হাজার রিংগিত যা বাংলাদেশি টাকা তিন লাখ ২০ হাজার টাকার মতো।

তারা আব্দুল্লাহর কাছে তাদের পাওনা টাকা চাইলেই বিভিন্ন প্রকার হয়রানির ভয় দেখিয়েছেন বলে অভিযোগ এই প্রবাসী শ্রমিকদের। এমনকি বিভিন্ন সময় মালয়েশিয়ার তামিল গ্যাং দিয়ে মারধর করার হুমকি দিয়েছে বলেও দাবি তাদের। সবশেষ তাদের পাওনা টাকা শিগগির পরিশোধ করা হবে জানিয়ে তিনি গত ৮ জুলাই বাংলাদেশে চলে আসেন।

অভিযোগের ব্যাপারে আব্দুল্লাহর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, হিরণ, কামরুলসহ কয়েকজন তার কাছে টাকা পাবেন তবে তারা যত দাবি করছে তত না। তিনি বলেন, আমি আবার মালয়েশিয়া গিয়ে তাদের পাওনাদি বুঝিয়ে দেব।