বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কিছু প্রতারক চক্র রয়েছে যারা নানা রকম অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা সমান অর্থ উপার্জন করে। আর এই সকল প্রতারক চক্রের সাথে নারীরাও জড়িত থাকেন। এমনকি নারীর মাধ্যমে প্রতারক চক্র নানা রকম সহায়তা নিয়ে তাদের কর্মকান্ড পরিচানলা করেন। আর এবার তেমনি একটি চক্রের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উদ্ধার করা হয়েছে।

তাঁরা চেক প্রজাতন্ত্রের দুই নাগরিক যাচ্ছিলেন দুবাই। কিন্তু লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে আসার সময় সঙ্গে আনেন স্যুটকেসভর্তি মুদ্রা। কিন্তু পার পেলেন না। দুজনই পড়েছেন ধরা। স্যুটকেস দুটিতে ছিল ১২ লাখ পাউন্ড। খবর রয়টার্সের।
আটক দুজনের একজন ৩৭ বছর বয়সী ও অন্যজন ২৬ বছর বয়সী নারী। ৮ নভেম্বর বর্ডার কর্মকর্তারা তাঁদের আটকায়। এই বিপুল মুদ্রা ছিল তিনটি স্যুটকেসে ও হাতে বহনযোগ্য দুটি ব্যাগে।
ইমিগ্রেশন কমপ্লায়েন্স অ্যান্ড দ্য কোর্টস দপ্তরের মন্ত্রী ক্রিস ফিলিপ এক বিবৃতিতে বলেন, যুক্তরাজ্য থেকে অঘোষিতভাবে অর্থ বের করে নিয়ে যাওয়া শক্ত হাতে দমন করা হয়। সং’ঘ’ব’দ্ধ অপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে এ লড়াই খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
গত অক্টোবরেও অর্থ পাচারের সময় এক নারী বিরাট অঙ্কের মুদ্রাসহ ধরা পড়েন। ওই নারী ১৯ লাখ পাউন্ড নিয়ে দুবাই যাচ্ছিলেন।


এদিকে, এই দুই নারীকে সনন্দেহ করা হচ্ছে যে তারা ওই দেশ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচার করতেছিলেন। তবে এই সকল চক্রকে প্রতিনিয়ত নজরে রাখছে দেশটির প্রশাসন। তেমনি এবার এই দুই নারীকে বিপুল পরিমাণ অর্থ সহ আটক করা হয়। আর তাদের বিষয়ে আরও খতিয়ে দেখছে দেশটির প্রশাসন।