করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে বিশ্বের প্রতিটা দেশের মানুষ অস্থিরতার মধ্যে রয়েছে। দেশে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ও প্রাণ যাওয়ার সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এদিকে, করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসার জন্য বেশ কিছু ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে এই সকল ওষুধ শতভাগ কার্যকারি কিনা তা এখনো পরীক্ষিত নয়। আর এ জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চিকিৎসক বিজ্ঞানীরা করোনা ভাইরাসের কার্যকারি ওষুধ তৈরি করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আর এবার করোনা ভাইরাসের চিকিৎসার জন্য ডব্লিউএইচও একটি ওষুধ ব্যবহারের সম্মতি দিল।


করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তদের চিকিৎসায় ম্যালেরিয়াবিরোধী ওষুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে সম্মতি দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

করোনা চিকিৎসায় যাদের উপর হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন প্রয়োগ হয়েছে তাদের শরীরে এর প্রভাব খতিয়ে দেখার জন্য গত ২৫ মে এই ওষুধ ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আনে সংস্থাটি। তবে বুধবার ডব্লিউএইচও জানায়, করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় ফের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করা যাবে। খবর এনডিটিভির

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়েসিস বলেছেন, করোনাভাইরাসের মৃ’’ত্যু নিয়ে যে তথ্য আমাদের কাছে এসেছে তার ভিত্তিতে আমাদের বিশেষজ্ঞ কমিটি হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন চালু করার কথা জানিয়েছে।

তিনি জানান, প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বিশেষজ্ঞ কমিটি এই ওষুধটির পরীক্ষা বাতিলের কোনও কারণ খুঁজে পায়নি।

এর আগে ল্যানচেট মেডিক্যাল জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় করোনাভাইরাস রোগীদের হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন দিয়ে চিকিৎসায় মৃ’’ত্যৃঝুঁকি বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের মারাত্মক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। করোনার চিকি’সায় এটি ব্যবহার করলে হৃ’দরোগের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এরপর গত ২৫ মে ওষুধটির ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা বাতিলের ঘোষণা দেয় ডব্লিউএইচও। ওই সময়ে সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়, তথ্য পর্যালোচনার সময়ে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।


উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি দেশে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহার করা হয়েছে। আর এরপর চিকিৎসকরা বলছে এই হাইড্রক্সিক্লোরোকুই করোনা রোগীদের জন্য অনেক ভালো ফল বয়ে আনছে। এছাড়া করোনায় সংক্রমিত হয়ে যাদের অবস্থা একেবারে খারাপ হয়েছে তাদের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহার করার ফলে তারা অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠেছে। তবে চিকিৎসকরা বলছে করোনার চিকিৎসার জন্য যে কোনো ওষুধ ব্যবসহার করার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।