করোনা ভাইরাস ঠেকাতে দেশে দেশে এখনো লকডাউন চলছে। আর এদিকে, ভারতে এখনও লকডাউন চলছে। যার কারণে সেখানে এখনো যাত্রী পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে এই লকডাউনের আগে অনেক মানুষ অনেক অঞ্চলে গিয়ে আটকা পড়েছেন। এ সকল মানুষেরা অন্যন্য অঞ্চল থেকে বাসায় ফেরারা জন্য অনেক চেষ্টা করছে। তবে রাস্তায় প্রশাসনের লোকরা কোন মানুষকে দেখলে তাদেরকে ঘরে ফিরতে বাধ্য করছে। এ জন্য প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দেতে অনেকে অনেক রকম ভাবে রাস্তায় বের হচ্ছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ভারতে কয়েক দফায় লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। চলমান লকডাউনে বাড়ি ফিরতে এক অভাবনীয় কাণ্ড ঘটিয়েছে দেশটির মধ্য প্রদেশে আটকে পড়া ভিন্ন রাজ্যের ১৮ জন শ্রমিক। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে সিমেন্টের মিক্সারের মধ্যে বসে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করেছিলেন তারা। সিমেন্টের মিক্সারের মধ্য থেকে তাদের বের হয়ে আসার একটি ভিডিও ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

জানা গেছে, ওই শ্রমিকরা উত্তর প্রদেশের লক্ষ্ণৌর বাসিন্দা। মধ্য প্রদেশে কাজ করতে এসে লকডাউনের কারণে বাড়ি ফিরতে পারছিলেন না। বাড়ি ফেরার কোনো উপায় না থাকায় এবং পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে মধ্য প্রদেশের ইন্দোর থেকে তারা ওই মিক্সারে ওঠেন।

তবে তাদের পরিকল্পনা সফল হয়নি। উত্তর প্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশ সীমান্তে তাদের ধরে ফেলে পুলিশ। লকডাউনে ফাঁকা রাস্তায় সিমেন্টের মিক্সার দেখে সন্দেহ হলে উজ্জয়িনী ও ইন্দারের মধ্যবর্তী একটি জায়গায় ওই মিক্সারটিকে দাঁড় করায় দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা। আর এতে ঘাবড়ে যান মিক্সারের চালক এবং বেড়িয়ে আসে আসল ঘটনা।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, যে ঢাকনা খুলে শ্রমিকরা বেরিয়ে আসছে তা একজনের জন্য যথেষ্ট নয়। তার মধ্যে দিয়েই ভেতরে ঢুকে মালপত্র নিয়ে বসেছিল ওইসব শ্রমিকরা।

এই ঘটনায় ওই মিক্সার ট্রাকের চালকের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে। পাশাপাশি ওইসব শ্রমিকদের বাসে করে লক্ষ্ণৌ পাঠানো হয়েছে এবং কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ভারতে কয়েক দফায় লকডাউনের সময় বাড়ানো হয়েছে। আর এ কারণে অন্যান্য মানুষের সাথে সব থেকে বিপদে পড়েছে অন্য অঞ্চলে আটকে থাকা শ্রমিকরা। লকডাইনের কারণে এই সকল শ্রমিকরা কোন কাজ করতে পারছেন না। এছাড়া তাদের পরিবারের কাছেও ফিরতে পারছেন না। আর এবার পরিবারের কাছে ফিরতে অভিনব ভাবে বাসায় যাচ্ছিল কিছু শ্রমিক।