বাংলাদেশে বর্তমানে রাজধানী ঢাকা শহরের কলাবাগানে ’ও’ লেভেল পড়ুয়া শিক্ষার্থী ঘটনা নিয়ে নানা রকম আলোচনা চলছে। বিশেষ করে এই ঘটনায় অভিযুক্ত তানভীর ইফতেখার দিহানের পরিবার সম্পর্কে অনেক তথ্য প্রকাশ্যে আসছে। তার ভাই ও তাকে নিয়ে অনেকে মুখ খুলছেন। আর এবার দিহান ও তার ভাইয়ের সম্পর্কে মুখ খুললো গ্রামবাসী। তাদের সম্পর্কে অনেক তথ্য দিয়েছে গ্রামবাসী।

রাজধানীর কলাবাগানে ’ও’ লেভেল পড়ুয়া শিক্ষার্থীর ঘটনায় অভিযুক্ত তানভীর ইফতেখার দিহানের কাছে এ ঘটনা নতুন নয়। দিহানের ভাই সুপ্তর বিরুদ্ধেও রয়েছে স্ত্রীকে শেষ করার অভিযোগ। এলাকাবাসী বলছেন, বাবার টাকার দাপটে এগুলো করার সাহস পান সুপ্ত এবং দিহান। সাব-রেজিস্ট্রার বাবার টাকার দাপটে অনেক আগে থেকেই বে/প/রো/য়া ছিল রাজধানীর কলাবাগানে শিক্ষার্থীর ধ/র্ষ/ণ ও হ/ত্যা/য় অভিযুক্ত দিহান ও তার বড় ভাই সুপ্ত।

অভিযুক্ত ইফতেখার ফারদিন দিহানের বাড়ি রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার রাতুগ্রাম গ্রামে। তার বাবার নাম আব্দুর রউফ সরকার। তিনি অবসরপ্রাপ্ত জেলা রেজিস্ট্রার। তার বড় ভাইয়ের নাম সুপ্ত। মেঝো ভাই নিলয় ঢাকায় একটি ব্যাংকে চাকরি করে। রাতুগ্রাম ছাড়াও জেলার বাগমারা উপজেলার তাহেরপুরে তাদের আরও একটি বাড়ি আছে। রাজশাহী শহরেও আছে দু’টি বাড়ি। এর একটি সাগরপাড়া এলাকায়। আরেকটি বাড়ি মহানগরীর পদ্মা আবাসিক এলাকায়। ঢাকায়ও রয়েছে ফ্ল্যাট। বাবার এই অঢেল সম্পত্তি আর প্রশ্রয়ে দিহান ও তার বড় ভাই একের পর এক অপরাধে সম্পৃক্ত হয়ে পড়ছে।

২০১১ সালে দিহানের বড় ভাই সুপ্ত রাজশাহী নগরীর হোসেনীগঞ্জের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে রুনা খাতুনকে বিয়ের পর অত্যাচার করে মুখে বিষ ঢেলে হ//ত্যা করে বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে বাবা আব্দুর রউফ সরকার সে সময় সাব-রেজিস্ট্রার থাকায় টাকার বিনিময়ে ঘটনাটা ধামাচাপা দেয় বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। রাতুগ্রামের মানুষ জানান, অভিযুক্ত দিহান ও সুপ্তের অ/প/রা/ধ বাবার প্রশ্রয়ে সীমা ছাড়িয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বড় ছেলে সুপ্তকে নিয়ে আবদুর রউফ সরকার গ্রামে থাকেন। আর মা সানজিদা সরকার শিল্পীর সঙ্গে দিহান ও তার মেজ ভাই নিলয় ঢাকায় থাকেন। নিলয় একটি ব্যাংকে চাকরি করেন। ছোটবেলা থেকেই দিহান রাজধানী ঢাকায় থাকেন। তাই তার সম্পর্কে গ্রামের মানুষের ধারণা কম। তবে তার বড় ভাই সুপ্তর ব্যাপারে ছিল তাদের ধারণা নেতিবাচক। এর আগেও রাজশাহীতে থাকাকালীন সময়ে ২০১১ সালে দিহানের বড় ভাই সুপ্ত রাজশাহী নগরীর হোসেনীগঞ্জের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে রুনা খাতুনকে বিয়ের পর অত্যাচার করে মুখে বিষ ঢে/লে হ//ত্যা করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এর আগে লিজা খাতুন নামে এক নারী নেত্রী বলনে, ’সুপ্ত এবং দিহানের বাবা তো টাকাওয়ালা ও প্রভাবশালী এবং এদের ফ্যামিলি ক্যারেক্টারটাই এ রকম টাইপের। মা-ও ভীষণ দু/র্ধ/র্ষ। এক এলাকাবাসী বলেন, ’ওদের ফ্যামিলিটা এ রকমই। ওরা টাকার জোরে এ রকম করে। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।’ অভিযুক্ত দিহান ও সুপ্ত বাবার প্রশ্রয়ে অপরাধ করার সীমা ছাড়িয়েছে বলে জানায় তাদের গ্রামের বাড়ি দুর্গাপুরের লোকজন।

গত বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) দুপুরে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় ফোন করে জানায়, এক কিশোরীকে হাসপাতালে মৃ//ত অবস্থায় এনেছেন এক তরুণ। কিশোরীর শরীর থেকে রক্ত ঝরছে। খবর পেয়ে নিউমার্কেট অঞ্চল পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার (এসি) আবুল হাসান ওই তরুণকে আটকে রাখার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন।

এরপর কলাবাগান থানার পুলিশ দ্রুত হাসপাতালে গিয়ে ওই তরুণকে আটক করে। পরে ওইদিন রাতেই তানভীর ইফতেখার দিহানকে (১৮) আসামি করে ছাত্রীর বাবা আল আমিন আহম্মেদ বাদী হয়ে ধ/র্ষ/ণ ও হ//ত্যা//র অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। মামলাটির ত/দ/ন্ত চলছে। এ ঘটনায় আরও কেউ জড়িত আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। সূত্র:বিডি২৪লাইভ ডট কম

এদিকে, এই অভিযুক্ত দিহান সেদিনের ঘটনা সম্পর্কে তার দ্বায় স্বীকার করেছে। তবে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তার সাথে আরও অনেক মেয়ের সম্পর্ক ছিল। এমনকি সে অনেক বেপরয়া জীবন যাপন করতেন বলে অনেকে মুখ খুলছেন। এছাড়া তার ভাইয়ের বিরুদ্ধেও এর আগে অভিযোগ উঠেছিল বলে সেই সংবাদ প্রকাশ্যে এসেছে।