রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প চুক্তি বাতিল ও বিদ্যুৎ-গ্যাস সমস্যা সমাধানে ৭ দফা দাবিতে ডাকা হরতালের সমর্থনে বিক্ষোভকারীদের ওপর কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। এসময় ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকি আক্তারসহ ৩০ জন আহত হয়েছে বলে দাবি করেছেন হরতালকারীরা।
আজ ২৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বিক্ষোভকারীদের দমাতে এসময় জলকামানও ব্যববহার করে পুলিশ।
জানা গেছে, হরতালের সমর্থনে পিকেটিং দমাতে ভোর থেকেই ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করে পুলিশ। শাহবাগ থেকে পল্টন মোড় পর্যন্ত বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়ন করা হয়। দাঙ্গা পুলিশসহ বেশ কয়েকটি জলকামানও প্রস্তুত রাখা হয়।
সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে হরতালের সমর্থনে একটি বিক্ষোভ মিছিল এসে শাহবাগ অবস্থান নিলে পুলিশ মিছিলকারীদের ওপর ব্যাপক কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। এসময় বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটে।http://2.bp.blogspot.com/-6iUyT31qVgc/UcXCGKFPs7I/AAAAAAAAB_g/HayHOfDykiM/s1600/shabag4.jpg
বিক্ষোভকারীদের ওপর জলকামানও ব্যবহার করতে দেখা যায় পুলিশকে। এক পর্যায়ে পিঁছু হটে মিছিলকারীরা পল্টনের দিকে ফিরে যান। পুলিশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাও ঘিরে রেখেছে। হরতালের সমর্থনে ক্যাম্পাসের মিছিলগুলো আটকে দিচ্ছে পুলিশ।
কয়েকজন বিক্ষোভকারী বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে করে আসছিলাম। পুলিশ অতর্কিতভাবে আমাদের ওপর টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এতে লাকি আক্তারসহ ৩০ জন আহত হয়।
উল্লেখ্য, তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ এক বিবৃতিতে এ হরতাল ও বিক্ষোভের ঘোষণা দেন। হরতাল চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত ।