বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী রিনা খান। এই অভিনেত্রী খল চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদর কাছে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন। এই অভিনেত্রী প্রায় ছয়শত এর অধিক সিনেমায় দাপটের সাথে অভিনয় করেছেন এবং এখন পর্যন্ত তিনি ব্যাপক জনপ্রিয়তার সাথে অভিনয় করে চলেছেন। তবে এই অভিনেত্রীকে প্রায় প্রতিটি সিনেমায় কুটনামির চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গেছে। তবে অভিনয়ের সাথে তার বাস্তবে কোনো মিল নেই। আর এবার গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেছেন এই অভিনেত্রী।

র্তমান ব্যস্ততা কী নিয়ে? উত্তরে তিনি বলেন, এখন সাভারের ধামরাইয়ে মনতাজুর রহমান আকবরের ’কাজের ছেলে’ শিরোনামের একটি চলচ্চিত্রের শুটিং করছি। ১৫ দিন চলবে এর শুটিং।

এই চলচ্চিত্রের আগে আরও দুটি সিনেমায় কাজ করেছি। সামনে দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর পরিচালনায় একটিসহ আরও কয়েকটি সিনেমায় কাজের কথা আছে। একটা সময় চলচ্চিত্রে যে জৌলুস ছিলো, এখন তা নেই কেন? রিনা খান বলেন, চলচ্চিত্রের এই খারাপ অবস্থার অনেক কারণ আছে। আগে প্রচুর গল্পভিত্তিক ছবি হতো। এ কারণে অনেক শিল্পী তৈরি হতো। এখন সেইরকম গল্পই হচ্ছে না। গল্পের পাশাপাশি হল, শিল্পী, নির্মাতাদের সংকট তৈরি হয়েছে। দর্শকদের আবার হলমুখী করতে হলে গল্পভিত্তিক ছবি বাড়াতে হবে। হলের পরিবেশ ভালো করতে হবে। নতুন করে এসব উদ্যোগ নিলে সুদিন ফিরলেও ফিরতে পারে। আসলে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা দরকার চলচ্চিত্রের দুরাবস্থা দূর করতে হলে। সিনেমায় নানা রকম ছল চাতুরী দিয়ে অন্যের সর্বনাশ করাই ছিল রিনা খানের কাজ। বাস্তব জীবনে তিনি কেমন? রিনা খান বলেন, নিজের সম্পর্কে বলা কঠিন। এতটুকু বলবো পর্দার সঙ্গে আমার বাস্তবের কোনো মিল নেই। ঠিক উল্টো আমি বাস্তবে। আমার সহকর্মীদের জিজ্ঞেস করলে আরও ভালো ধারণা পাবেন আমার সম্পর্কে। শুটিংয়ের বাইরে সময় কীভাবে কাটে? এ অভিনেত্রী বলেন, অবসরে ঘরের কাজ করি। ছেলে, ভাই-বোনদের সঙ্গে সময় কেটে যায়। অভিনয় ক্যারিয়ারে কোনো অপূর্ণতা আছে কিনা জানতে চাইলে রিনা খান বলেন, সিনেমা থেকে অনেক কিছু পেয়েছি। এখনও কোথাও গেলে আমাকে এক পলক দেখার জন্য হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসে। মানুষের এতো ভালোবাসা পাওয়ার পর আর কোনো অপূর্ণতা থাকতে পারে না। অভিনয় জীবনে এই মানুষটির সফলতার মূল মন্ত্র কী? রিনা খান বলেন, কাজকে প্রাধান্য দিয়েছি। কোনো দিন অবহেলা করিনি। এজন্য হয়তো সৃষ্টিকর্তা আমার দিকে মুখ তুলে চেয়েছেন। জনপ্রিয়তা দিয়েছেন।

এদিকে, দেশের এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী তার কাজের পাশাপাশি পরিবারকে অধিক সময় দেন। তবে তার বাস্তব জীবন একেবারে ভিন্ন। এই অভিনেত্রীর সাথে তার প্রতিবেশির অনেক ভালো সম্পর্ক রয়েছে। আর তিনি তার কাজের জন্যও অনেক গর্ব বোধ করেন। তার এই জনপ্রিয়তার জন্য তিনি সব সময় দর্শকদের ক্রেডিট দেন।