সাইফ আলী খান-অমৃতা সিংয়ের কন্যা সারা আলী খান বলিউডে পা রেখেছেন। কেদারনাথ সারা আলী খানের প্রথম ছবি। বক্স অফিসে ভালোই সাড়া ফেলে অভিষেক কাপুর পরিচালিত ছবিটি। প্রথম ছবিতেই সারা সবার মন জয় করেছেন। এরপর সময়ের সাথে সাথে রণবীর সিংয়ের সঙ্গে ’সিম্বা’র পর পাল্লা দিয়ে তার ব্যস্ততাও বেড়ে চলেছে।
শিগগিরই ইমতিয়াজ আলির ’লাভ আজকাল-২’ ছবিতেও কার্তিকের বিপরীতে দেখা যাবে সারাকে। আবার ’কুলি নাম্বার-১’এ তার বিপরীতে থাকছেন বরুণ ধাওয়ান। শুধু পেশাগত জীবন নিয়েই নয়, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিভিন্ন ইস্যুতে প্রায়ই খবরের শিরোনাম হন এ নবাবকন্যা। মিষ্টভাষী সারার কর্মক্ষেত্র থেকে শুরু করে পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে সব সময় সুসম্পর্ক বজায় রাখেন।

মা অমৃতার সঙ্গে সাইফের বিচ্ছেদ হয়ে গেলেও কারিনা, তৈমুরের সঙ্গে সারার সম্পর্ক দারুণ। মাঝে মধ্যেই সাইফ, কারিনা, তৈমুর, ইব্রাহিম ও সারাকে একসঙ্গে সময় কাটাতে দেখা যায়। এর আগেও বহুবার কারিনাকে নিয়ে কথা বলেছেন সাইফ কন্যা সারা। আবারো বেবোকে নিয়ে মুখ খুললেন তিনি।
’আমার মনে হয় না কারিনা শুধু আমার বন্ধু, তিনি তার থেকেও বেশি কিছু। তিনি আমার বাবার স্ত্রী। আমি তাকে সম্মান করি। আমি এটা বেশ অনুভব করি কারিনা আমার বাবাকে সুখী করতে পেরেছে। আমাদের পেশাও এক। আমাদের জগৎটাও তাই এক। মাঝে মধ্যেই আমাদের এনিয়ে কথাবার্তাও হয়ে থাকে।’ সম্প্রতি ফেমিনা ম্যাগাজিনের পক্ষ থেকে প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন সারা।

তিনি সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি বুঝতে পারি বাবা কেন তৈমুরকে নিয়ে এতটা সচেতন। এর কারণ তৈমুর আজকাল একটু বেশিই পাপারাৎজির ক্যামেরার ফ্ল্যাশে থাকে। আর আমার বাবা কখনোই চায় না যে তৈমুর
তার বেড়ে ওঠার শৈশবের মুহূর্তে বুঝে যাক যে ও একজন বিশেষ কেউ। যদিও আমরা কেউই কিছুই করতে পারি না তৈমুরের মিডিয়ার ফ্ল্যাশে থাকার বিষয়ে। তবে আমি এ বিষয়ে নিশ্চিত যে তৈমুরকে শৃঙ্খলার মধ্যেই বড় করে তুলবে আমার বাবা ও করিনা। তাই মিডিয়ার নজরে তৈমুরের থাকলেও কোনও ক্ষতি হবে না।