সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এ আবরার ফাহাদের ঘটনার পর থেকে সব খানে এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। বিভিন্ন ব্যক্তি এ সঘটনা নিয়ে নানা রকম বক্তব্য দিয়েছেন। অনেকে বুয়েটের ছাত্র রাজনীতি বন্ধের কথা বলেছেন। বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধে অনেক শিক্ষার্থীরা অন্দোলন করেছেন। শিক্ষার্থীরা অনেক দাবি উঠালে তা বুয়েটের ভিসি মেনে নিয়েছেন। এরপর শিক্ষার্থীরা অন্দোলন বন্ধ করেছে।
তবে এবার বুয়েটের ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, বিভিন্ন অনুষদের ডীন, সকল আবাসিক হলের প্রভোস্ট এবং বিভাগীয় প্রধানরা শপথ গ্রহণ করেছেন। আজ দুপুর ১টা ২০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে তাদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়।

শপথ গ্রহণের আগে আবরার ফাহাদের ঘটনার জন্য ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্পিত দায়িত্বসমূহ সতর্ক ও সততার সঙ্গে পালন, অপশক্তি রুখে দেয়া, যেকোন নিপীড়নমূলক কর্মকা-ে বন্ধে পদক্ষেপ নেয়াসহ নানা অঙ্গীকার করে তারা শপথ নেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে তাদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়।

শপথ গ্রহণের পর শিক্ষার্থীরা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান। অন্যদিকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলেও ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা।

ভারত-বাংলাদেশ চুক্তি নিয়ে গত ৬ই অক্টোবর বিকালে একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস দেন শের-ই বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র আবরার ফাহাদ। ওই রাতেই তার নিজ কক্ষ ১০১১ থেকে ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নেয় ছাত্রলীগ নেতারা।

তবে এই ঘটনার পর বেশ কয়েক জনকে গ্রেফতার করেছে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এরই মধ্যে অনেকেই এই ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে। দেশের সাধারণ মানুষরা চায় এই ঘটনার বিচার যেন তারাতারি হয়। এবং এই ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়া হোক।