দেশের সরকারি হাসপাতাল থেকে প্রায় সময় অভিযোগ ওঠে সেখানে রোগীদের সাথে ভালো ব্যবহার করা হয় না। এমনকি চিকিৎসকরা অনেক সময় নিজেদের গায়ের জোড়ে কাজ করে থাকেন। তাদের কারণে সাধারণ রোগীরা নানা রকম ভোগান্তির শিকার হন। আর এবার তেমনি একটি অভিযোগ উঠে এসেছে যে এক সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক কে স্যার বলে না ডাকায় তিনি রোগীর চিকিৎসা করাননি। একটা সময় সেই রোগী শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।

সরকারি হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসককে ’স্যার’ না ডেকে ’দাদা’ বলে ডাকায় ব্রে’’ন স্ট্রো’’কে’’র রোগীকে চিকিৎসা না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এরপর চিকিৎসার অভাবে রোগী মা’’রা গেছেন বলে দাবি স্বজনদের।

শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টায় সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এ ঘটনা ঘটে।

শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালীনি ইউনিয়নের পূর্ব দূর্গাবাটি গ্রামের বিশ্বজিৎ মণ্ডল জানান, আমার বাবা নিরঞ্জন মণ্ডল (৭০) ব্রে’ন স্ট্রো’ক করায় এবং শ্বা’স’ক’ষ্ট বেড়ে যাওয়ায় রাত ১০টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসি। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডাক্তার অমিতকে ’দাদা’ সম্বোধন করে চিকিৎসার কথা বললে তিনি বলেন, ’সবাই আমাকে স্যার বলে ডাকেন কিন্তু আপনি আমাকে দাদা বললেন কেন?’

তিনি আরও বলেন, ডাক্তারকে অনুরোধ করে একাধিকবার ডাকলেও তিনি আমার বাবাকে দেখেননি। এরপর সঠিক চিকিৎসার জন্য সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার সময় বাবা মা’’রা যান।

ডাক্তার অমিত বলেন, ’প্রটকলে আছে আমাদেরকে স্যার বলতে হবে। আমাদের প্রশিক্ষণ থেকেই বলেছে যে সাধারণ মানুষ আমাদের স্যার বলে ডাকবে’।

এছাড়া এ বিষয়ে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে কথা বলতে বলেন।

এ বিষয়ে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অজয় সাহা জানান, বিষয়টি দুঃখজনক এবং ব্যাপারটি অবশ্যই খতিয়ে দেখব। সূত্র: জাগো নিউজ

উল্লেখ্য, দেশে করোনা ভাইরাস দেখা দেওয়ার পর থেকে সরকারি হাসপাতাল গুলোর নানা রকম অনিয়মের চিত্র উঠে এসেছে। এমনকি চিকিৎসকরা সাধারণ রোগীদের সাথে ভালো ব্যবহার করেন না বলে অভিযোগ ওঠে। তেমনি এবার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল তিনি রোগীকে দেখেননি। একটা সময় ওই রোগী না ফেরার দেশে চলে যান।